সর্বশেষ

নোয়াখালীতে কন্যা সন্তান জম্ম দেয়ায় স্কুল শিক্ষিকাকে হত্যার ঘটনা।। ময়না তদন্ত প্রতিবেদনে আঘাত জনিত কারনে মৃত্যু হয়েছে বলে উল্লেখ।। হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে মিছিল সমাবেশ ও মানববন্ধন

নোয়াখালীতে স্কুল শিক্ষিকা ফারজানা নূর সুখীর হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে মিছিল, সমাবেশ ও মানববন্ধন করেছে সুখীর স্বজন ও এলাকাবাসী। বুধবার দুপুরে নাপিতের পুল এলাকা থেকে একটি শোক মিছিল বের হয়ে জেলা শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এরপর মিছিলকারীরা নোয়াখালী প্রেসক্লাবের সামনে এসে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন রচনা করে।
এ সময় সুখীর পিতা সাব্বির আহম্মদ অভিযোগ করেন, সুখীর হত্যাকারীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করছে না। আর তাই অবৈধ উপায়ে বিশাল বিত্ত বেভবের মালিক ডা. আহসান উল্লা খান ও তার পরিবারের লোকজন টেলিফোনে তাদের নানা রকম হুমকি দিচ্ছে। সুখীকে হত্যাকারীরা  যেকোন সময় তার নবজাতক শিশু কন্যাকে অপহরণের হুমকিও দিচ্ছে বলে জানান তিনি। মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারীরা অবিলম্ভে হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী কাছে সম্মারকলিপি দেন।

সিলেটের মৌলভী বাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা ফারজানা নূর সুখী পছন্দে বিয়ে করেন বরিশাল সরকারি হাতেম আলী ডিগ্রি কলেলের প্রভাষক মো. বায়েজিদকে। স্বামীর বাড়ি বেগমগঞ্জের আলীপুরে। শশুর নোয়াখালী চিকিৎসা সহকারী স্কুলের (ম্যাটস) শিক্ষক ডা. এবিএম আহসান উল্যার খান প্রথম থেকেই এই বিয়ে মেনে নিতে পারেননি। বিয়ের পর থেকে নানা অজুহাতে শশুর বাড়িতে তার মেয়েকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করা হতো।
গত ১৪ এপ্রিল জেলা শহরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে সিজারের মাধ্যমে ফারজানার কন্যা সন্তান জন্ম নেয়। আর এই কন্যা সন্তান জম্ম নেয়ায় স্বামী, শশুর, শ্বাশুড়ী ক্ষুদ্ধ হয়ে চিকিৎসা শেষ না হতেই ফাজানাকে হাসপাতাল থেকে বাড়ি নিয়ে যান। এরপর বিনা টিকিৎসা আর নানা রকম নির্যাতনে এক পর্যায়ে রোববার ফারজানাকে অচেতন অবস্থান জেলা শহরের মর্ডাণ হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

এ ব্যপারে সুখীর বাবা সাব্বির আহম্মেদ বাদী হয়ে তার স্বামী বায়েজীদ বোস্তামী, শ্বশুর ডা. আহসান উল্লা খান, শ্বাশুড়ি মাহেনুর বেগমও ননদ বরকত জাহান আপনান আসামী করে বেগমগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করে। এরপর পুলিশ শ্বাশুড়ি মাহেনুর বেগমকে গ্রেপ্তার করলেও বাকি আসামীরা এখন গ্রেপ্তার হয়নি।

এদিকে ময়না তদন্ত রিপোর্টে নির্যাতনের কারণে সুখীর মৃত্যু হয়েছে বলে মতামত দিয়েছেন চিকিৎসকরা। নোয়াখালী মেডিকেল কলেজ হানপাতালের চিকিৎসক কামরুজ্জামানকে প্রধান করে গঠিত ৫ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গত মঙ্গলবার সিভিল সার্জন আবদুর রশীদ মোল্লার কাছে ময়না তদন্ত রিপোর্ট দাখিল করেন। সিভিল সার্জন জানিয়েছেন, ওই রিপোর্টে আঘাত জনিত কারণে সুখীর শরীরে প্রজুর রক্তক্ষরণ, পেটে জমাটবাধা রক্ত এবং কলিজা চিড়ে যাওয়ার আলামত পাওয়া গেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

ছবি ক্যাপশন:
১.    নোয়াখালী: স্কুল শিক্ষিকা ফারজানা নূর সুখীর হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে জেলা শহরে মানববন্ধন
২.    নোয়াখালী: স্কুল শিক্ষিকা ফারজানা নূর সুখীর হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে জেলা শহরে শোক মিছিল বের করা হয়।


  • আবু নাছের মঞ্জু

লোকসংবাদ | Loksangbad | The First Bangla Online Newspaper from Noakhali সাজসজ্জা করেছেন মুকুল | কপিরাইট © ২০১৫ | লোকসংবাদ | ব্লগার

Bim থেকে নেওয়া থিমের ছবিগুলি. Blogger দ্বারা পরিচালিত.