সর্বশেষ

সোনাইমুড়ীতে ১৪৪ ধারা জারি একইস্থানে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সমাবেশ আহবান হামলা ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় আহত ৬

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে একই স্থানে হরতাল বিরোধী সমাবেশ আহবানের পর রোববার আওয়ামী লীগের বিবাদমান দুই পক্ষের মধ্যে হামলা, পাল্টা হামলা ও ধাওয়া হয়েছে। এসব ঘটনায় উভয় পক্ষের অন্তত ৬ জন আহত হয়।
এনিয়ে প্রশাসন উপজেলা সদরের তিনটি স্থান সোনাইমুড়ী কলেজ মাঠ, সোনাইমুড়ী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ ও রেলওয়ে ময়দানে দুপুর ১২টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত সবধরনের সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করে ১৪৪ ধারা জারি করে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বেলা এগারটার দিকে সোনাইমুড়ী বাজারে আওয়ামী লীগের তলবিসভায় অব্যাহতিপ্রাপ্ত উপজেলা সভাপতি মমিনুল ইসলাম বাকের ও সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাবুর পক্ষের সমর্থকরা বিএনপির হরতাল, নৈরাজ্য বিরোধী প্রতিবাদ সমাবেশের প্রচারে মাইক নিয়ে বের হয়।

প্রচার মাইকটি সোনাইমুড়ী ডাক-বাংলোর সামনে গেলে অপরপক্ষ উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহফুজুর রহমান বাহারের সমর্থকরা তাদের প্রচারে বাধা দেয়। এসময় তারা একে অপরের ওপর হামলা চালায়। এঘটনার প্রতিবাদে সোনাইমুড়ী বাজারে বাকের ও বাবুর সমর্থকরা মিছিল বের করলে দুই পক্ষের মধ্যে কয়েকদফা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। এসব ঘটনায় উভয় পক্ষের অন্তত ৬জন আহত হয়েছে।
আহতরা হচ্ছেÑ মো: মামুন (২৮), বদরুল হক (৩৫), মো: জালাল উদ্দিন (৪৫), কালা সহিদ (২৮), মামুনর রশীদ (২২) ও মো: সাইফুল (২৫)। আহতদের স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।
তলবিসভায় অব্যাহতিপ্রাপ্ত উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আ ফ ম বাবু জানান, তারা বিএনপির হরতাল নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশের কর্মসুচী দিয়েছিলেন। কিন্তু তাদের অপর একটি পক্ষ বিএনপির সঙ্গে হাত মিলিয়ে তাদের প্রচার মাইকে বাধা দেয় এবং কয়েকজন কর্মীকে মারধর করে।
তলবিসভায় মনোনীত ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহফুজুর হক বাহার জানান, তারাই আগে হরতাল ও নৈরাজ্য বিরোধী সমাবেশ আহবান করেছিলেন। কিন্তু বাকের ও বাহারের লোকজন শহরের পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করার জন্য পাল্টা কর্মসুচী দেয়।
সোনাইমুড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) অনুপম বড়–য়া জানান, দুই পক্ষের মধ্যকার উত্তেজনা ও একই স্থানে সমাবেশ আহবান করায় সোনাইমুড়ী কলেজ মাঠ, সোনাইমুড়–ী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ ও রেলওয়ে ময়দানে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সবধরণের সভাসমাবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।
সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হুমায়ুন কবির জানান, তারা তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রেনে আনেন। বর্তমানে শহরের বিভিন্ন স্থানে পুলিশ টহল দিচ্ছে।

লোকসংবাদ | Loksangbad | The First Bangla Online Newspaper from Noakhali সাজসজ্জা করেছেন মুকুল | কপিরাইট © ২০১৫ | লোকসংবাদ | ব্লগার

Bim থেকে নেওয়া থিমের ছবিগুলি. Blogger দ্বারা পরিচালিত.