সর্বশেষ

কলেজ ছাত্রীর আপত্তিকর ভিডিও ফুটেজ ছড়ানোর অপরাধে বসুরহাট মুজিব কলেজের ৭ শিক্ষার্থী এবং ছাত্রলীগের ৫ কর্মী বহিস্কার

নোয়াখালীর বসুরহাট সরকারি মুজিব কলেজ থেকে ৭ শিক্ষার্থীকে বহিস্কার করা হয়েছে। এক ছাত্রীর আপত্তিকর ভিডিও ফুটেজ ছড়ানো এবং এনিয়ে গত সোমবার ক্যাম্পাসে নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় মঙ্গলবার কলেজ কর্তৃপক্ষ ৭ শিক্ষার্থীকে অভিযুক্ত করে এ বহিষ্কারাদেশ দেন। বহিষ্কারকৃত শিক্ষার্থীরা হলেন-দ্বিতীয় বর্ষের সুলতান মাহমুদ হোসেন রকি, প্রথম বর্ষের আছমা আক্তার কনিকা, আবদুল্লাহ আল ফাহাদ, মোঃ ফয়সাল, আকবর কবির, শাহাদাত হোসেন সজল ও সাইফুল ইসলাম মালেক।
কলেজের অধ্যক্ষ ফারুক হোসেন ভূঞা ৭ শিক্ষার্থীকে বহিস্কারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এদের মধ্যে সুলতান মাহমুদ হোসেন রকি, আছমা আক্তার কনিকা, আবদুল্লাহ আল ফাহাদ ও মোঃ ফয়সালকে আপত্তিকর ভিড়িও চিত্র ছড়ানোর অপরাধে এবং শাহাদাত হোসেন সজল ও সাইফুল ইসলাম মালেক এনিয়ে গত সোমবার ক্যাম্পাসে সংঘর্ষের ঘটনায় অভিযুক্ত করে বহিষ্কার করা হয়।

অন্যদিকে সোমবার রাতে আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগের জরুরী সভায় একই ঘটনায় অভিযুক্ত করে ছাত্রলীগ থেকে সুলতান মাহমুদ হোসেন রকি, শাহাদাত হোসেন সজল, তারিন, আবদুল্লাহ ও জাবেদকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

বসুরহাট সরকারি মুজিব কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি নাজিম উদ্দিন বাদল ৫ ছাতলীগ কর্মীকে বহিস্কারের তথ্য নিশ্চিত করে জানান, ঐ সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও সাবেক পৌর চেয়ারম্যান আবদুল কাদের মির্জা, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খিজির হায়াত খান, সাধারণ সম্পাদক ইস্কান্দার হায়দার চৌধুরী বাবুল, যুগ্ম সম্পাদক নুরনবী চৌধুরী, বসুরহাট পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মিজানুর রহমান সাজু, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জায়েদুল হক কচি, সাধারণ সম্পাদক লুৎফুর রহমান মিন্টু, যুগ্ম সম্পাদক তানবির ও কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি নাজিম উদ্দিন বাদল উপস্থিত ছিলেন।

বসুরহাট সরকারি মুজিব কলেজের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা জানান, ছাত্রলীগ কর্মী সুলতান মাহমুদ হোসেন রকি, শাহাদাত হোসেন সজল, আবদুল্লাহ আল ফাহাদ, মোঃ ফয়সাল, আকবর কবিরসহ আরও কয়েকজন ছাত্র কলেজ ক্যাম্পাসে প্রথয় বর্ষের এক ছাত্রীর (আছমা আক্তার কনিকার) আপত্তিকর ভিডিও ফুটেজ ২৬ অক্টোবর অনলাইন ফেসবুকে ছেড়ে দেয়। এনিয়ে গত সোমবার দুপুরে কলেজে ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে সজল, জাবেদ, নোমান, তারিন ও আবদুল্লাহ আহত হন। খবর পেয়ে পলিশ ঘটনাস্থল থেকে জাবেদ ও তারিনকে আটক করে।

এদিকে আপত্তিকর ভিডিও ফুটেজ ছড়ানোর ঘটনায় কলেজ কর্তৃপক্ষ ইংরেজির প্রভাষক আবু রায়হান মোঃ আল বেরুণী, রসায়নবিদ্যার প্রভাষক আবদুল কাদের ও বাংলার প্রভাষক অশ্র“মনি সাহাকে সদস্য করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। ঐ কমিটি তাদের তদন্ত রিপোর্টে পুরো ঘটনার জন্য ৭ শিক্ষার্থীকে অভিযুক্ত করে তাদেরকে কলেজ থেকে বহিষ্কারের সুপারিশ করেন।

লোকসংবাদ | Loksangbad | The First Bangla Online Newspaper from Noakhali সাজসজ্জা করেছেন মুকুল | কপিরাইট © ২০১৫ | লোকসংবাদ | ব্লগার

Bim থেকে নেওয়া থিমের ছবিগুলি. Blogger দ্বারা পরিচালিত.