সর্বশেষ

নোয়াখালীতে ছাত্রদলের কমিটি নিয়ে বিরোধের জের, দুই গ্রুপের সংঘর্ষে জেলা সভাপতি সহ আহত ১৫\ আটক ৪\ গাড়ি ভাংচুর


নোয়াখালীতে ছাত্রদলের জেলা কমিটি নিয়ে বিরোধের জের ধরে বুধবার জেলা শহর মাইজদীতে বিবাদমান দু’গ্র“পের মধ্যে ধাওয়া পাল্ট ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় ৪টি যাত্রীবাহী গাড়ি ভাংচুর করা হয়। হামলায় নবগঠিত জেলা কমিটির সভাপতি নুরুল আমিন খান ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সামছুদ্দোহা মিঠু সহ অন্তত ১৫ জন নেতাকর্মী আহত হয়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৪ জনকে আটক করে।

আহতদের মধ্যে নুরুল আমিন খানকে প্রথমে শহরের নিরাময় প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তাঁর অবনতি দেখা দিলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পঙ্গু হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এছাড়া নোয়াখালী শহর শাখার প্রাক্তন সভাপতি রাসেল, প্রাক্তন সহ-সভাপতি আবদুল হান্নান টিটু, নোয়াখালী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ শাখার নেতা মোহাম্মদ উল্লাহ রিপন ও সবুজকে নিরাময় হাসপাতালে এবং বাবুকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।  অন্যান্যদের শহরের বিভিন্ন প্রাইভেট ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, জেলা ছাত্রদলের নবগঠিত কমিটির সভাপতি নুরুল আমিনের নেতৃত্বে বেলা পোনে ১২টার দিকে শহীদ ভুলু ষ্টেডিয়ামের সামনে থেকে একটি আনন্দ মিছিল বের হয়ে শহরের প্রধান সড়ক দিয়ে দক্ষিন দিকে যাওয়ার সময় টাউন হলের মোড়ে এলে প্রতিপক্ষ গ্র“ফ ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে তাদের উপর হামলা চালায়। এ সময় উভয় গ্রফের মধ্যে বেশ কয়েক দফা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে প্রতিপক্ষ গ্র“ফের হামলায় সভাপতি নুরুল আমিন খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সামছুদ্দোহা মিঠু সহ অন্তত ১৫ জন নেতাকর্মী আহত হন। হামলা ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার সময় প্রধান সড়কে ৪টি যাত্রীবাহী বাসের গ্লাস ভাংচুরের ঘননা ঘটে। খবর পেয়ে সুধারাম থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এসময় পুলিশ ছাত্রদলের মেজর মান্নান কলেজ শাখার আহবায়ক আবদুল মান্নান, অহিদুল ইসলাম, তপু ও ফাইমকে আটক করে।
ছাত্রদলের আহত নেতাকর্মীরা জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবদুল মতিনের সমর্থকরা এ হামলার ঘটনার সাথে জড়িত বলে অভিযোগ করেন। তবে আবদুল মতিন হামলার ঘটনার সাথে তিনি বা তার সমর্থকরা জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেন। মতিনের দাবি মিছিলে অংশগ্রহণ করে তার একজন সমর্থকও আহত হয়েছেন।
এ ব্যাপারে জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সামছুদ্দোহা মিঠু জানান, গত ২৬ মে নোয়াখালী পৌরহলে জেলা ছাত্রদলের সম্মেলনের পর ২৭ জুলাই কেন্দ্র থেকে সভাপতি, সহ-সভপতি, সাধারন সম্পাদক, যুগ্ম সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পদকসহ ১০ সদস্যের একটি কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়।  নবগঠিত কমিটির আনন্দ মিছিল নিয়ে তারা প্রধান সড়কে বের হন। তিনি বলেন-মিছিলটি টাউন হলের কাছে এলে কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই আমাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে হামলা করা হয়েছে। হামলাকারীরা কারা কিংবা কোন দলের তা আমাদের কাছে স্পষ্ট নয়। ছাত্রদলের নবগঠিত  জেলা কমিটিতে পদ বঞ্চিতরাই এমন করতে পারে বলে তাদের ধারণা। 
অন্যদিকে জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক সাবের আহমেদ জানান, নবগঠিত কমিটির সভাপতি নুরুল আমিন কর্মী সমর্থকদের সাথে নিয়ে বিএনপির জেলা সভাপতি মো: শাহজাহানের সাথে দেখা করতে যাওয়ার সময় টাউন হলের সামনে একদল উশৃঙ্ঘল কর্মী তাদের উপর হামলা চালায়। কমিটি নিয়ে বিরোধের জের ধরে হামলার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন। অন্যদিকে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে জানানো হয়, নিজেদের আন্ত:কলহের কারনে মারামারির ঘটনার সাথে ছাত্রলীগ কোনভাবেই জড়িত নয়। তারা এ ঘটনার সাথে ছাত্রলীগকে জড়ানোর চেষ্টার নিন্দা জানান।
নোয়াখালী জেলা বিএনপি’র সভাপতি মো: শাহজাহান ও সাধারন সম্পাদক হারুনুর রশীদ আজাদ ছাত্রদলের মিছিলে সন্ত্রসী হামলার ঘটনায়  দু:খ ও নিন্দা জানিয়ে এ ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান।
সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মোশাররফ হোসেন তরফদার জানান, নিজেদের মধ্যে বিরোধের জের হিসেবে হামলা ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্র এনেছে।

ছবি ক্যাপশন:
নোয়াখালীতে ছাত্রদলের বিবাদমান দু’গ্র“পের মধ্যে ধাওয়া পাল্ট ধাওয়া।
নোয়াখালীতে ছাত্রদলের বিবাদমান দু’গ্র“পের মধ্যে ধাওয়া পাল্ট ধাওয়া।
হামলায় আহত জেলা ছাত্রদলের সভাপতি নুরুল আমিন খান



  • আবু নাছের মঞ্জু

লোকসংবাদ | Loksangbad | The First Bangla Online Newspaper from Noakhali সাজসজ্জা করেছেন মুকুল | কপিরাইট © ২০১৫ | লোকসংবাদ | ব্লগার

Bim থেকে নেওয়া থিমের ছবিগুলি. Blogger দ্বারা পরিচালিত.