সর্বশেষ

নোয়াখালীতে জামায়াতের বিক্ষোভ সমাবেশ পন্ড, আহত ১৫, সংবাদপত্র অফিসে হামলা

নোয়াখালীতে পুলিশের ধাওয়ায় ও ছাত্রলীগ-যুবলীগ কর্মীদের হামলায় জামায়াতের বিক্ষোভ সমাবেশ পন্ড হয়ে গেছে। একই সময় স্থানীয় দৈনিক জনতার অধিকার প্রত্রিকার কার্যালয়ও হামলা-ভাঙচুরের কবলে পড়ে।  বুধবার বিকেল চারটার দিকে এই ঘটনা ঘটে।
এসময় ছাত্র ও যুবলীগের হামলায় জামায়াত ও শিবিরের ১৫জন নেতা-কমী আহত হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি মাওলানা আলাউদ্দিন দাবি করেছেন। এসময় পুলিশ ঘটনাস্থল মাইজদী পৌর বাজার থেকে জেলা জামায়াতের আমির মাওলানা আবদুল মুনায়েমসহ ১৭জনকে আটক করলেও সন্ধ্যায় তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

অন্যদিকে, জেলা সদরে জামায়াত-শিবিরের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের প্রতিবাদে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা বিকেল পাঁচটার দিকে বিক্ষোভ মিছিল করে। পরে দলীয় কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেনÑ অধ্যক্ষ বেলাল উদ্দিন কিরন, আবদুল ওয়াদুদ পিন্টু, আবদুল মমিন বিএসসি, সহিদুল্লাখান সোহেল, মোস্তফা ইকবাল ও ইকবাল করিম তারেক প্রমুখ।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিকেল চারটার সময় শহরের পৌর বাজারের সামনে থেকে জামায়াত-শিবিরের কর্মীদের একটি মিছিল জামে মসজিদের মোড়ে এসে পুলিশের বাধার সন্মুখিন হয়। এসময় মিছিলকারীদের পুলিশ ধাওয়া করলে তাঁরা পুলিশের বাধা অতিক্রম না করে মিছিল নিয়ে পুনরায় পৌরবাজারের মফিজ প্লাজার সামনে সমাবেশ শুরু করে। যার এক পর্যায়ে ছাত্র ও যুবলীগের একদল কর্মী সমাবেশে হামলা চালায়। এনিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টাধাওয়া হয়। এতে শহরের বেশিরভাগ দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায় এবং লোকজন দিকবিদিক ছুটোছুটি করতে দেখা যায়।
এদিকে, ধাওয়া খেয়ে জামায়াত-শিবির কর্মীরা পাশ্ববর্তী স্থানীয় দৈনিক জনতার অধিকার পত্রিকার অফিসে আশ্রয় নিয়েছে সন্দেহে ছাত্র ও যুবলীগ কর্মীরা সেখানে হামলা-ভাঙচুর চালায়। পত্রিকার সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোঃ ফারুক জানান, হামলায় পত্রিকার অফিসের ব্যপক ক্ষতি হয় এবং বার্তা সম্পাদক নাছির উদ্দিন শাহ নয়ন আহত হন।
সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোশারফ হোসেন জানান, আটক জামায়াত নেতা-কর্মীরা মারামারির সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। তাঁদের আটক নয়, উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। পরে তাঁরা সেখান থেকে চলে যান। এছাড়া পত্রিকার অফিসে হামলার ঘটনা খবর শুনে পুলিশ পাঠিয়েছেন বলে জানান তিনি।
এছাড়া দপুর বারটার দিকে বেগমগঞ্জের চৌমুহনী শহরে দলীয় কার্যালয় থেকে একটি মিছিল বের করে জামায়াত কর্মীরা। মিছিলটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুর্ব বাজারে গিয়ে শেষ করে। পরে মিছিলকারীরা রেলগেইট পার হওয়ার সময় ছাত্র ও যুবলীগের একদল কর্মী তাঁদের ধাওয়া করে।
এদিকে, মঙ্গলবার রাতে সেনবাগের সেবারহাট থেকে পুলিশ সাইফুল ইসলাম খান (২৬) ও মেসকাতুল ইসলাম বাসার (২৫) নামে দুই জামায়াত কর্মিকে গ্রেপ্তার করেছে। এছাড়া সেবারহাট ও সেনবাগ উপজেলা সদরে সরকারি কর্তব্যপালনে বাধা দেওয়ার অভিযোগে পুলিশ বাদি হয়ে জামায়াতের পৌর আমির মোঃ হানিফসহ অর্ধশত নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করে।

লোকসংবাদ | Loksangbad | The First Bangla Online Newspaper from Noakhali সাজসজ্জা করেছেন মুকুল | কপিরাইট © ২০১৫ | লোকসংবাদ | ব্লগার

Bim থেকে নেওয়া থিমের ছবিগুলি. Blogger দ্বারা পরিচালিত.