সর্বশেষ

২২ ডিসেম্বর জেলা সম্মেলনে হাসানুল হক ইনুসহ দলের নীতি নির্ধারকরা আসছেন

এক সময়ের শক্ত ঘাঁটি নোয়াখালীতে আবার সংগঠিত হচ্ছে জাসদ

আবু নাছের মঞ্জু, নোয়াখালী: 
এক সময়ের শক্ত ঘাটি নোয়াখালীতে আবার জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদকে জাগিয়ে তোলার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এলক্ষ্যে তৃণমূল থেকে দলের নিষ্কৃয় নেতা কর্মীদের সক্রিয় করে তোলার পাশপাশি নতুন করে কর্মী সমর্থক সৃষ্টির মিশন নিয়ে জাসদের একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা গত কয়েক মাস থেকে নোয়াখালী এসে কাজ করছেন। কেন্দ্রীয়  নেতৃবিন্দ জেলা নেতাদের সাথে নিয়ে এখন সম্মেলনের মাধ্যমে দলের বিভিন্ন উপজেলা ও পৌর কমিটি গঠনের কাজে ব্যস্ত সময় পর করছেন। ২২ ডিসেম্বর দলের জেলা সম্মেলনে যোগ দিতে নোয়াখালী আসছেন জাসদ সভাপতি মহাজোটের অন্যতম রূপকার হাসানুল হক ইনু এমপি, সহ-সভাপতি শরীফ নুরুল আম্বিয়াসহ দলের নীতি নির্ধারকরা। নোয়াখালী পৌরহলে অনুষ্ঠিতব্য এ সম্মেলনকে সফল করে তুলতে পুরো জেলাজুড়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্পটে বর্ণিল ব্যানার লাগনো, পোষ্টার সাটানো, লিফলেট ও দাওয়াতকার্ড বিতরন, দেয়াল লিখন, মাইকিংসহ চলছে গণসংযোগের কাজ।
সংশ্লিষ্ট সূত্র  জানান, এক সময় বৃহত্তর নোয়াখালী অঞ্চল ছিল স্বাধীনতা পরবর্তী বাংলাদেশের প্রথম বিরোধী দল জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের শক্ত ঘাটি। জাসদের দার্শনিক নেতা মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক সিরাজুল আলম খান ও দলের প্রতিষ্ঠাতাদের অন্যতম স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলক আ.স.ম আবদুর রব নোয়াখালী অঞ্চলের সন্তান। এছাড়া বরাবরই জাসদের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে নোয়াখালী অঞ্চলের প্রধান্য থাকায় এ অঞ্চল হয়ে উঠে দলের শক্ত ঘাটি। তখন বৃহত্তর নোয়াখালীতে জাসদ থেকে নির্বাচন করে অনেকেই সংসদ সদস্য ও উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। এখনো নোয়াখালী অঞ্চলের অধিকাংশ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হয় জাসদের বর্তমান নাহয় প্রাক্তন নেতা। এ অঞ্চলের ছাত্র রাজনীতিতেও ছিল জাসদ ছাত্রলীগের প্রচণ্ড দাপট। ছাত্র সংসদগুলো ছিল জাসদ ছাত্রলীগের নিয়ন্ত্রণে। আদর্শিক দ্বন্ধের কারনে মাঝে জাসদ রব, ইনু ও শাহজাহান সিরাজ এ ৩ ভাগে বিভক্ত হয়ে যায়। জাসদ থেকে আবার বাসদ মাহবুব ও খালেকুজ্জামান গ্রফের সৃষ্টি হয়। তখন নোয়াখালীতে বহুধা বিভক্ত জাসদ ও বাসদের মধ্যে মূলত আ.স.ম আবদুর রবের নেত্বাধীন জাসদের অবস্থাই ভালো ছিল। এ অবস্থায় ১৯৯৭ সালে বহুধা বিভক্ত জাসদ ও বাসদের একটি অংশ পল্টন ময়দানে বিশাল সমাবেশ করে আ.স.ম আবদুর রব ও হাসানুল হক ইনু’র নেতৃত্বে আবার একিভূত হয়। তখন নোয়াখালী অঞ্চলে জাসদ, বাসদের ঝিমিয়ে পড়া নেতাকর্মীরা আবার সংগঠিত হতে থাকেন। কিন্তু সে ঐক্য বেশিদিন স্থায়ী না হতেই ২০০১ সালে আ.স.ম রব জাসদ থেকে বের হয়ে ইউপিআর নামে ভিন্ন একটি সংগঠনের কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। আর ঐ সময়টাতে নেতা কর্মীদের মনোবল ধরে রাখতে জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনুসহ কেন্দীয় নেতারা বার বার নোয়াখালী ছুটে আসতেন। নোয়াখালীতে এভাবেই বাড়তে থাকে জাসদের সাংগঠনিক শক্তি।

এরই ধারাবাহিকতায় জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরী সভাপতি মঈন উদ্দিন খান বাদল এমপি ও যুগ্ম সম্পাদক শিরিন আক্তারসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবিন্দ অক্টোবর মাসে নোয়াখালী সফরে এসে নেতাকর্মীদের দল গোছানোর জন্য দিকনির্দেশনা দিয়ে যান। ২৪ অক্টোবর জাসদের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে নোয়াখালী টাউন হলে আয়োজিত বিশাল কর্মী সমাবেশে মঈন উদ্দিন খান বাদল ও শিরিন আক্তারের বক্তব্যে দীর্ঘদিন থেকে দলীয় কর্মকাণ্ড থেকে দূরে থাকা নেতা কর্মীরা আবার উজ্জিবিত হয়ে উঠেন। মূলত এপর থেকে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতারা দায়িত্ব নিয়ে তৃণমূল থেকে দলের কর্মী সমর্থকদের সংগঠিত করার কাজে হাত দেন। জেলা জাসদের সভাপতি মো: সলিম উল্যাহ ও সাধারন সম্পাদক এভোকেট আজিজুল হক বকষি জানান, ইতোমধ্যে সম্মেলনের মাধ্যমে দলেরর ৮টি উপজেলা ও ৬টি পৌরসভা কমিটি গঠন করা হয়েছে। এরআগে ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে কমিটি গঠনের মাধ্যমে তৃণমূলে দলের নেতা কর্মীদের সংগঠিত করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তে এলাকায় অবস্থান করে এসব দলীয় কর্মকাণ্ডে প্রধান সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করছেন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক মিয়া মো: শাহজাহান।

জেলা সম্মেলনের প্রস্তুতি সম্পর্কে মিয়া মো: শাহজাহান জানান, আগামী ২২ ডিসেম্বর বিকেল ৩টায় নোয়াখালী পৌরহলে সম্মেলনকে উৎসব মুখর করে তুলতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। সম্মেলনের উদ্বোধনী পর্বে জেলা, উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায় থেকে ব্যাপক নেতাকর্মীর সমাবেশ ঘটানো হবে। পাশাপাশি আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের প্রতিনিধিদের। সম্মেনের প্রস্তুতি সম্পর্কে সাংবাদিকদের অবহিত করতে ২১ ডিসেম্বর সকালে নোয়াখালী প্রেসক্লাবে প্রেসব্রিফিং এর আয়োজন করা হয়েছে। এদিন রাতে জেলা শহরে মশাল মিছিল বের করা হবে। সম্মেলনের প্রধান অতিথি জাসদ সভাপতি মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও মহাজোটের অন্যতম রূপকার হাসানুল হক ইনু এমপি আগামী ৭ ও ৮ জানুয়ারি জাসদের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল, জঙ্গিবাদ, যুদ্ধাপরাদীদের বিচার, মহাজোটের ঐক্যসহ জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন ইস্যুতে নেতাকর্মীদের দিকনির্দেশনা দেবেন বলে মিয়া মো: শাহজাহান জানান।

লোকসংবাদ | Loksangbad | The First Bangla Online Newspaper from Noakhali সাজসজ্জা করেছেন মুকুল | কপিরাইট © ২০১৫ | লোকসংবাদ | ব্লগার

Bim থেকে নেওয়া থিমের ছবিগুলি. Blogger দ্বারা পরিচালিত.